Hotline: +8809612120202
দেশের উন্নয়নে জুয়েলারি খাতের বিকল্প নেই : সায়েম সোবহান আনভীর
Back to All News

দেশের সর্ববৃহৎ বাণিজ্য সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স এসোসিয়েশনের (বাজুস) প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর বলেছেন, দেশের উন্নয়নে জুয়েলারি খাতের বিকল্প নেই। আমার কাজ ছিলো জুয়েলারি খাত গুছিয়ে আনার। সেটা করেছি। এখন এই শিল্পকে ধরে রেখে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কাজ সারাদেশের ৪০ হাজার জুয়েলারি ব্যবসায়ীর। বাংলাদেশে এই যে বড় বড় উন্নয়ন হচ্ছে, আরও উন্নয়ন পরিকল্পনা হচ্ছে, এগুলো একটা সময় আমার কাছে স্বপ্ন মনে হতো। কিন্তু আমার এখন অনেক সাহস হয়ে গেছে। আমি এখন বাংলাদেশে যেকোনো মেগা শিল্পকারখানা করার জন্য প্রস্তুত। কারণ, আমার এই শক্তির যোগান দিচ্ছে সরকার। এই সরকার গত ১৪ বছরে দেশের উন্নয়নে মিরাকেল ঘটিয়েছে, যা বিশ্ব প্রতিযোগিতায় অবিশ্বাস্য রোলমডেল। আমি আজকে বাংলাদেশি হিসেবে গর্ববোধ করি।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা- আইসিসিবিতে অনুষ্ঠিত ‘বাজুস সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা-২০২২’র সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাজুস প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর। 

তিনি জুয়েলারি ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, আমি সবসময় ইতিবাচক চিন্তা করি। আমার অনুপ্রেরণা ইতিবাচকতা, উৎপাদনশীল এবং অগ্রগতি। আর ভালো কাজে বাধা আসবে, এটাই স্বাভাবিক। ভালো কাজ করতে কষ্ট হবেই। এটার সুফল অনেক বড় এবং স্থায়ী।  যেকোনো জিনিসই প্যারেন্ট থেকে শুরু, ফ্লাটলাইন থেকে শুরু। তো আমি মনে করি, বাজুস আমি ফ্লাটলাইন থেকে শুরু করেছি। আই উইল গো স্টেস বাই স্টেস নাউ। একটা একটা করে ফ্লোর বানিয়ে যাব। এটাই আমার অনুপ্রেরণা, এটাই আমার উৎসাহ, এটাই আমার চিন্তা, এটাই আমার ধারণা এবং আমি এটাই করব। এই কাজ করার জন্য যা যা করার দরকার, যে যে জায়গায় যাওয়া দরকার, আমি তাই করব। এই শিল্প নিয়ে শুধু বাংলাদেশ না, সারা দুনিয়াতেই নিয়ে যাবো আমি। সবার কাছে বলবো বাংলাদেশে আসুন। 

 

বাজুস প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর বলেন, আমি বাংলাদেশ, আপনি বাংলাদেশ। বিশ্ববাজারে আমরা আমাদের দেশের প্রতিনিধিত্ব করছি, এজন্য নিজেদের গর্ববোধ করা উচিত। এখন সব জায়গায় কোনো কিছু কিনতে গেলে মেড ইন চায়না দেখা যায়। এখন কিন্তু কিছু জায়গায় মেড ইন বাংলাদেশও দেখা যায়। আর কিছু না হলেও বাংলাদেশি পোশাক পণ্য দেখা যায়। আমি চাই, আগামী দিনে বাংলাদেশি জুয়েলারি খাতের নামও বিশ্বের বুকে থাকুক। এটা আমাদের সোনার বাংলাদেশ, সোনা দিয়েই ভরতে হবে। তামা দিয়ে হবে না। আমরা তামা-সিলভার না। আমরা সোনার বাংলাদেশ। আমার যে জুয়েলারি কারখানা হচ্ছে, সেখানে প্রায় ১২ হাজার ভরি উৎপাদন করবো। প্রাথমিকভাবে ৬ হাজার শ্রমিক কাজ করবে। আমি ৫ বছরের যে রোডম্যাপ করেছি। সেখানে প্রায় ৩০ হাজার ভরি পর্যন্ত গহনা তৈরি করবো। প্রায় ৩০ থেকে ৪০ হাজার লোক আমার কারখানায় কাজ করবেন। আমার মতো যদি আরও ১০টা উদ্যোক্তা আসে। এই জুয়েলারি শিল্প বাংলাদেশকে উজ্জল করবে। ধীরে ধীরে এই শিল্প অন্য শিল্পকে ছাড়িয়ে যাবে। 

বাজুস প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর বলেন, জাপানে কিন্তু কোনো কাঁচামাল নেই। আমরাও একই অবস্থানে। আমাদের কোনো কাঁচামাল নেই। তাহলে জাপান কী করছে। কাঁচামাল আমদানি করে রূপান্তরের পর উচ্চ মূল্যে তারা রপ্তানি করছে। এটাই ব্যবসার থিম। আমাদের একই থিম অনুসরণ করতে হবে।

আমার খুব কষ্ট লাগে, যখন আমি দেখি আমাদের বাংলাদেশের লোকজন গিয়ে বিদেশ থেকে গহনা কিনে। কিন্তু দেখুন বাংলাদেশের কারিগর বিশ্বসেরা। বাংলাদেশে একটা ভালো ডিজাইন ইনস্টিটিউট নেই। ইনস্টিটিউট নিয়ে আমার অনেক বড় স্বপ্ন আছে। আমাদের চারুকলা ইনস্টিটিউট আছে। আমার চিন্তায় আছে ডিজাইন স্টুডিও গড়ে তোলার। ভোকেশনাল সেন্টার নিয়েও ভাবছি। এগুলো যদি যুক্ত করে সবকিছু যদি একটা ছাতার নিচে আনা যায়। তাহলে এই শিল্পে বিপ্লব ঘটবে। 

বাজুস সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় মনোমুগ্ধকর বর্ণিল আয়োজনে গান পরিবেশন করেন দেশের প্রখ্যাত সংগীত শিল্পী ও বাজুস অ্যাম্বাসেডর মমতাজ বেগম এমপি। তিনি বাজুসের থিম সং ‘নারী হয় অন্যন্যা রূপের অংহকারে/ সেই রূপ অপরূপ সোনার অলঙ্কারে’ শীর্ষক সংগীতের মধ্য দিয়ে একে একে তার জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন। বাজুসের থিম সংটি লিখেছেন খ্যাতনামা গীতিকার কবির বকুল। সুর করেছেন ক্লোজআপ ওয়ান তারকা কিশোর দাস। 

অনুষ্ঠানে রাজধানী ঢাকার সকল বাজুস সদস্যসহ সারাদেশের জেলা শাখাগুলোর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং উপজেলা শাখাগুলোর সভাপতিসহ প্রায় দেড় হাজার জুয়েলারি ব্যবসায়ীর মিলন মেলায় পরিণত হয়। এর আগে দুপুরে সারাদেশের জেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকেরা বাজুস প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার বাসভবনে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় মিলিত হন। এই সভায় সাংগঠনিক দিক-নিদের্শনামূলক বক্তব্য দেন বাজুস প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীর। 

এ ছাড়া আইসিসিবিতে বিকালে জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দের অংশগ্রহণে জাতীয় প্রতিনিধি সভা-২০২২ অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় সারাদেশের জুয়েলারি ব্যবসায়ী নেতাদের কাছে বিভিন্ন কর্ম-পরিকল্পনা ও সাংগঠনিক কর্ম-পরিধি তুলে ধরেন বাজুসের সাবেক সভাপতি ডা. দিলীয় কুমার রায় ও এনামুল হক খান দোলন, সহ-সভাপতি গুলজার আহমেদ, আনোয়ার হোসেন, এম. এ. হান্নান আজাদ, বাদল চন্দ্র রায়, ডা. দেওয়ান আমিনুল ইসলাম শাহীন, সাধারণ সম্পাদক দিলিপ কুমার আগরওয়ালা প্রমুখ। 


Related News

সায়েম সোবহান আনভীর বাজুস সভাপতি নির্বাচিত

সায়েম সোবহান আনভীর বাজুস সভাপতি নির্বাচিত

Read More
Jewellery Industry needs unity: BAJUS President Sayem Sobhan Anvir

Jewellery Industry needs unity: BAJUS President Sayem Sobhan Anvir

Read More
স্বর্ণের জনপ্রিয়তা বাড়বে নতুন বছরে

স্বর্ণের জনপ্রিয়তা বাড়বে নতুন বছরে

Read More
Anvir new BAJUS President

Anvir new BAJUS President

Read More
  • ২২ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম স্বর্ণের মূল্য : ৮০১০/-
  • ২১ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম স্বর্ণের মূল্য : ৭৬৪৫/-
  • ১৮ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম স্বর্ণের মূল্য : ৬৫৫৫/-
  • ২২ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম রূপার মূল্য : ১৪৭/-
  • ২১ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম রূপার মূল্য : ১৪০/-
  • ১৮ ক্যা: ক্যাডমিয়াম (হলমার্ককৃত) প্রতি গ্রাম রূপার মূল্য : ১২০/-
  • সনাতন পদ্ধতির প্রতি গ্রাম স্বর্ণের মূল্য : ৫৪৬০/-
  • সনাতন পদ্ধতির প্রতি গ্রাম রূপার মূল্য : ৯০/-